চ’ৰাঘৰ / হেমাংগ বিশ্বাস বিশেষ / হারাধন-ৰংমনৰ কথা ( হেমাংগ বিশ্বাস আৰু ভূপেন হাজৰিকা )

হারাধন-ৰংমনৰ কথা ( হেমাংগ বিশ্বাস আৰু ভূপেন হাজৰিকা )

ৰংমন: মনৰে বননিৰ চেনেহৰে নিজৰাৰ
পানীকে এটুপি পিওঁ,
পোৰাকৈ ভেঁটিতে তুমি ঘৰ বান্ধা
আমি টঙাল তুলাই দিওঁ‌।

হারাধন: আবার আমি বান্ধমু ঘর
আবার গাইমু গান
দুঃখে যদি পাষাণ গলে
গলবে কি পরাণ‌।

ৰংমন : লুইতৰ চাপৰিত চাকৈয়ে কান্দিলে
মানুহৰ নাওখন চাই
মানুহৰ দুখতে মানুহ বুৰিব
আনকচোন দুষিবৰ নাই‌।

হারাধন : পদ্মাৰ তুফান উড়াইয়া নিল’
আমার সুখের ঘর
উজান ঠেয়লা আইলাম আমি লুইতের চর।
আমার ভাংগা নাওয়ে বন্ধু
তুমি ধরলায় হাল‌।
এ’ মিলন গাঙে আনলো বলে
কে বিভেদের বান
চর ভাংগিল, ঘর ভাংগিল
ডুবলো সোণার ধান‌।
আমার দেহে বৃষ্টি শুকায়
রক্তকণায় সুরুজ ঘূমায়
হালের খুটি মুঠিতে শোভায়
তবু কেন উপবাসী
নিজ দেশে পরবাসী
সমনীয়া বলো না আমায়‌।

ৰংমন: ভাষা নুবুজিও যুগে যুগে আহে
মানুহে মানুহৰ পিনে
মৰমৰ ভাষাৰে আখৰ নাইকিয়া
বুজিব খুজিলেই চিনে‌।
গংগাৰ চাপৰিৰ তলিতে দেখিবা
লুইতৰ পলসো আছে,
তোমাৰে মোৰে আয়ে কান্দিলে
একেই চকুপানী মচে‌।
তুমিয়ে মইয়ে দেশখন গঢ়োঁতে
যদিহে কেঁচাঘাম সৰে‌
দুয়োৰে ঘামৰে মিলনে দেখিবা
বুৰঞ্জী ৰচনা কৰে‌।

হারাধন  ৰংমন(দুখেৰে দ্বৈতকন্ঠত):

এনেনো দুখ লাগে বান্ধৈ
এনেনো দুখ লাগে
অতীত দিনের মিলন স্মৃতি
যখন মনে জাগে‌।
তুমি ছড়ালে বীজ বন্ধু
আমি কাটলাম আলি‌
একেই সংগে ঘরে আনলাম
সোণালী রূপশালি‌।

(দ্বৈতকন্ঠত)

এনেনো ভাল লাগে বান্ধৈ
এনেনো ভাল লাগে
এমন ভাল লাগেরে বন্ধু
এমন ভাল লাগে
তুমি নাচা বিহুনাচ আমি দিব তালি
ঐকতানে মিলে যাব বিহু-ভাটিয়ালী
দেশকে আবার গঢ়বো মোরা
বুকের মরম ঢালি‌।
এনেনো ভাল লাগে বান্ধৈ
এনেনো ভাল লাগে
এমন ভাল লাগেরে বন্ধু
এমন ভাল লাগে
তুমি নাচা বিহুনাচ আমি দিব তালি
ঐকতানে মিলে যাব বিহু-ভাটিয়ালী
দেশকে আবার গঢ়বো মোরা
বুকের মরম ঢালি‌।

( সংগ্ৰহ আৰু ইউনিকড : অঞ্জন শইকীয়া)

মন্তব্য দিয়ক

আপোনৰ ইমেইল ঠিকনা প্ৰকাশ কৰা নহ'ব । বাধ্যতামূলক শিতানসমূহ * ৰে চিহ্নিত কৰা হৈছে